Headlines News :
Home » » সিলেটের এসপি'র ভূমিকায় জকিগঞ্জবাসীর নিকট প্রশংসিত পুলিশ

সিলেটের এসপি'র ভূমিকায় জকিগঞ্জবাসীর নিকট প্রশংসিত পুলিশ

Written By zakigonj news on শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯ | ৪:৫৭ AM

রহমত আলী হেলালী
পুলিশ নিয়ে অনেকের বিরূপ ধারণা থাকলেও সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম সে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন। দুষ্টের দমন, শিষ্টের লালন নীতিতে কাজ করে তিনি সিলেট জেলা পুলিশকে ক্রমেই প্রশংসিত করে তুলেছেন। পূণ্যভূমি সিলেটের এসপি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের মাত্র ৫ মাসের মাথায় সিলেটবাসীর নিকট  একেকটা চমক সৃষ্টি করে যাচ্ছেন এসপি মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম । এবার তিনি সিলেটের সীমান্ত উপজেলা জকিগঞ্জের এক আলোচিত ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম ও তাঁর সহযোগীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসায় জকিগঞ্জবাসী অনেকের নিকট পুলিশকে ব্যাপক প্রশংসিত করে তুলেছেন। সামাজিক বিচারের নামে বেধড়ক মারপিট করে আলোচনায় আসা এই ইউপি সদস্যকে পুলিশ গ্রেফতার করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন মাধ্যমে পুলিশকে বাহবা দিতে দেখা গেছে।
স্থানীয় অনেকে অভিযোগ করে বলেন, বিচারের নামে অমানুষিক নির্যাতন ও নারী কেলেঙ্কারী সহ বিভিন্ন ঘটনায় এধিকবার আলোচনায় আসেন ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম। কিন্তু তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কেউ কোন কথা না বলায় তিনি দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছিলেন। তবে গত ১০ নভেম্বর উপজেলার আটগ্রাম আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা নও মুসলিম আব্দুল মান্নান বুতুলের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় আলোচনায় চলে আসেন ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম। নও মুসলিম আব্দুল মান্নান বুতুলকে ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম গং বেধড়ক মারধর করে জোরপূর্বক বিষ পান করিয়ে হত্যা করেছেন বলে গত ১৪ নভেম্বর সিলেটের পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ করে বসেন মৃত আব্দুল মান্নান বুতুলের চাচাতো ভাই শাকিল আহমদ। পুলিশ সুপারের নির্দেশে অভিযোগটি তদন্ত করছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জকিগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত রায়। এরই ফাঁকে বুধবার সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয় আব্দুস ছালাম মেম্বার কর্তৃক গিয়াস উদ্দিনকে নির্মম নির্যাতনের একটি ২৫ সেকেন্ডের ভিডিও। নির্যাতনের এই ভিডিওটি সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সর্বত্র ব্যাপক ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় উঠে। তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে সর্ব মহলে দাবী উঠে।
উপজেলার বড়বন্দ গ্রামের বাসিন্দা ইউপি সদস্য এবাদুর রহমানের বাড়িতে ধারণকৃত ২৫ সেকেন্ডের ওই নির্যাতনের ভিডিওটিতে দেখা যায়, বাড়ির উঠানে বেশ কিছু মানুষের উপস্থিতিতে বাঁশের সঙ্গে হাত-পা বেঁধে গিয়াস উদ্দিনকে ঝুলিয়ে বেধড়ক পেঠাচ্ছেন ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম। নির্যাতনের শিকার গিয়াস উদ্দিন চিৎকার, চেচামেচি ও বাঁচার আকুতি জানিয়ে তাকে রক্ষার আর্তনাদ করলেও কেউ নির্যাতন থেকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেননি। এমনকি নির্যাতনের শিকার যুবকটিও দীর্ঘ ১০ মাস থেকে থানা পুলিশ কিংবা অন্য  কারো নিকট কোন অভিযোগ করেনি। তথাপি সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি দেখে তৎপর হয়ে উঠেন। আলোচিত এই ইউপি সদস্য ও তার সহযোগিদের গ্রেফতারে জকিগঞ্জ থানা পুলিশকে কঠোর নির্দেশ প্রদান করেন। পুলিশ সুপারের নির্দেশ ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জকিগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত রায়ের নেতৃত্বে জকিগঞ্জ  থানার ওসি মীর মোঃ আব্দুন নাসের, কানাইঘাট থানার ওসি শামসুজ্জামান (দোহা), জকিগঞ্জ থানার এসআই সম্রাজ মিয়া, এসআই মোঃ রাজা মিয়া, এসআই পরিতোষ পাল, এসআই জহিরুল, এসআই মিজানুর, এএসআই মোঃ তাজুল ইসলাম, এএসআই জামাল, এএসআই মখলিছ মিয়া, এএসআই কানন ও এএসআই অঞ্জন দেব সহ একদল পুলিশ অভিযুক্ত ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম ও সহযোগিদের গ্রেফতারে অভিযানে মাঠে নামে। বুধবার রাতব্যাপী অভিযান শেষে ফোন টেকিংয়ের মাধ্যমে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় কানাইঘাটের সীমান্তবর্তী এলাকা কাড়াবাল্লা থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টার দিকে নির্যাতনকারী ইউপি সদস্য আব্দুস ছালামকে আটক করে পুলিশ। এর আগে অভিযুক্ত অপর এক ইউপি সদস্য এবাদুর রহমান সহ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত আনোয়ার হোসেন ও মোঃ শাহজাহানকে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ কৌশলে আটক করে।
এদিকে প্রভাবশালী এই ইউপি সদস্যকে এত দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসতে সিলেটের এসপি'র ভূমিকায় জকিগঞ্জবাসীর নিকট প্রশংসিত হয়েছে পুলিশ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পুলিশের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানাতে দেখা গেছে অনেককে।
জকিগঞ্জের মরিচা গ্রামের বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আবু তাপাদার এনাম নিজ ফেসবুক আইডিতে দীর্ঘ একটি স্টেটাসের ভূমিকায় বলেন, মাননীয় এসপি মহোদয়, সিলেট। 'ধন্যবাদ' শব্দটা আপনার জন্য বেমানান। আমি মনে করি তা একেবারে ছোট কিছু। আপনার সাহসীকতা, সততা, মেধা প্রজ্ঞা, অভিজ্ঞতা, ব্যক্তিত্ব, অপরাধীর আতংক, ভালো মানুষের ভরসা ও আত্মবিশ্বাসের শেষ ঠিকানা। আমি বুঝে উঠতে পারছি না কোন বিশেষণ দ্বারা আপনাকে বিশ্লেষণ করব । কৃতজ্ঞ, পুলকিত, আনন্দে উদ্বেলিত, নির্যাতিত ও জুলুমে আবর্তিত মজলুম জনতার পক্ষ থেকে আপনাকে হাজার লক্ষ বিনম্র ছালাম ।
জকিগঞ্জের আটগ্রামের বাসিন্দা ফ্রান্স প্রবাসী সালাউদ্দিন জালাল নিজ ফেসবুক আইডিতে সিলেটের এসপি মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায় ও জকিগঞ্জ থানার ওসি মীর মোঃ আব্দুন নাসেরকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, চিরকৃতজ্ঞ সারাজিবন। ৩নং কাজলসার ইউনিয়নের মানুষের হৃদয়ে লেখা থাকবে এই তিন সৎ সাহসী পুলিশ অফিসারের। যাদের কথায় কাজে মিল আছে । আটগ্রাম গুচ্চগ্রাম তথা নিরীহ চালক শ্রমজিবী মানুষের আর্তনাদ একমাত্র আপনারা বুঝেছেন। শত কোটি সালাম স্যার আপনাদের প্রতি । সত্যি আপনাদের ধন্যবাদ কিভাবে দেব বুঝতে পারছি না । তারপরও অনেক অনেক ধন্যবাদ স্যার।
জকিগঞ্জের জামুরাইল গ্রামের বাসিন্দা সৌদি আরব প্রবাসী তারেকুল ইসলাম তারেক নিজের ফেসবুক আইডিতে লিখেন, পুলিশ জনগণের বন্ধু তা আপনারা প্রমাণ করলেন সিলেট জেলার এসপি মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন স্যার, জকিগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায় স্যার ও জকিগঞ্জ থানার ওসি মীর মোঃ আব্দুন নাসের স্যার। সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকবে এই ৩নং কাজলসার ইউনিয়নের মানুষ। হৃদয়ে লেখা থাকবে আপনারা এই তিন সৎ সাহসী পুলিশ অফিসারের কথা। যাদের কথায় ও কাজে মিল আছে।
জকিগঞ্জের ইলাবাজ গ্রামের বাসিন্দা সংবাদকর্মী আহসান হাবীব লায়েক নিজ ফেসবুক আইডিতে লিখেন, এতদিন ইউপি সদস্য আব্দুস ছালামের আটগ্রাম কেন্দ্রিক ত্রাসের রাজত্ব কায়েমের নানা কাহিনী কানে আসলেও প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলেনি। জানি, এতকিছুর পরও মানুষ ছালাম মেম্বারের এমন ক্ষমতার অপব্যবহারের কথা গোপনে সহ্য করতো। যদি সিলেটের  মাননীয় পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন স্যারের বলিষ্ট তত্বাবধান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায় স্যারের নেতৃত্ব এবং ওসি মীর মোঃ আব্দুন নাসের স্যারের সফল অভিযান না হতো, তাহলে প্রতিবারের মতো এবারো ছালাম মেম্বার পার পেয়ে যেত। এজন্য এই তিন চৌকস পুলিশ অফিসারের প্রতি কৃতজ্ঞ।
এভাবেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক জুড়ে  সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জকিগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত রায় ও জকিগঞ্জ থানার ওসি মীর মোঃ আব্দুন নাসের সহ পুলিশের  প্রতি অভিনন্দন, ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞতা, শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানিয়ে পরিচিত-অপরিচিত এমন অসংখ্য ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা শতশত ফেসবুক ব্যবহারকারী।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad