Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জে জমে উঠেছে পশুর হাট

জকিগঞ্জে জমে উঠেছে পশুর হাট

Written By zakigonj news on শুক্রবার, ৯ আগস্ট, ২০১৯ | ৫:০৮ PM

রহমত আলী হেলালী
ঈদুল আযহার মাত্র কয়েকদিন বাকি। জকিগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পশুর হাট জমে উঠেছে। জকিগঞ্জ বাজার, কালিগঞ্জ বাজার, বাবুর বাজার, শাহগলি বাজার, মাদ্রাসা বাজার, রতনগঞ্জ বাজার ও সোনাসার বাজারে গরুর হাটে বিভিন্ন জাতের গরু-ছাগলে ভরপুর। তিল ধারনের জায়গা নেই। শত শত গরু নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন বিক্রেতারা। আর ক্রেতারা পছন্দের গরু খুজছেন কম দামে কিনতে। কেনাবেচা কম হলেও ঘাটতি নেই ক্রেতা-বিক্রেতার। হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ গরুর হাটের প্রতি নজরদারী জোরদার করেছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জকিগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত রায় জানান, পবিত্র ঈদুল আযহা শান্তিপূর্ণভাবে পালনে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ তৎপর রয়েছে। ঈদ উপলক্ষ্যে সব ধরনের অরাজকতা ঠেকাতে হাট বাজার গুলোতে পুলিশের কড়া নজরদারী রয়েছে। কেউ কোন বিশৃংখলা সৃষ্ঠি করতে চাইলে পুলিশ ছাড় দেবেনা।
অপরদিকে জকিগঞ্জ সীমান্তে বিজিবি কড়া নজরদারীর ফলে গরু ভারতীয় গরু পাচার বন্ধ রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। এবার দেশী গরু দিয়ে চাহিদা পুরন হচ্ছে বলে ক্রেতা-বিক্রেতাদের দাবী। তবে স্থানীয় হাট গুলোতে তুলনা মুলক ভাবে গরুর দাম অনেক বেশী। উপজেলায় এবার ৮টি হাটে গরু বেচা কেনা হচ্ছে।
জকিগঞ্জ উপজেলার খলাদাফনিয়া গ্রামের লোকমান হোসেন, কামালপুর গ্রামের কাওছার আহমদ কয়েছ, জামুরাইল গ্রামের আব্দুল মুনিম, পশ্চিম গোটারগ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান, সখড়া গ্রামের আহসান হাবীব লায়েক ও পশ্চিম জামডহর গ্রামের তারেক চৌধুরী নামের ক্রেতা জানান বাজারে প্রচুর দেশী গরু আসছে। তবে হাটে গরুর দাম অনেক বেশি। যে টাকা নিয়ে আসছি আমরা তাতে গরু কেনার বাজেট ফেল হয়েছে। তবে হাটে আসা গরু বিক্রেতা আব্দুল বাছিত জানান, একটা গরু পালন করতে যে অর্থ ব্যয় হয়েছে, সে টাকাই উঠছে না। এ রকম চলতে থাকলে আগামীতে এ এলাকার মানুষ গরু পালন করা ছেড়ে দিবেন। উপজেলার কালিগঞ্জ বাজার, বাবুর বাজার, শাহগলী বাজার, রতনগঞ্জ বাজার, মাদ্রাসা বাজার, সোনাসার বাজার ও জকিগঞ্জ বাজারের গরুর হাট ঘুরে দেখা গেছে, স্থানীয়ভাবে পালন করা খামারী সহ ব্যক্তি পর্যায়ে পালন করা বিভিন্ন আকারের গরু হাটে উঠেছে। এছাড়া ছাগলের পাশাপাশি ভেড়াও কেনাবেচা হচ্ছে। একেকটা গরু ৪০ হাজার থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম হাকাচ্ছেন বিক্রেতারা। তবে হাটে আসা ক্রেতারা তাদের সামর্থ্যরে মধ্যে গরু কেনা চেষ্টা করছেন। এক হাটে চাহিদা মত গরু পাওয়া না গেলে ক্রেতারা অন্যহাটে ছুটছেন। কিন্তু ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশি থাকলেও কাঙ্খিত মূল্য না পাওয়ায় গরু বেচাকেনা হচ্ছে কম। তবে অনেক বিক্রেতাদের আশা শেষ মুহুর্তের হাট গুলোতে তারা কাঙ্খিত দাম পাবেন। উপজেলার ছোট-বড় সব হাটে শেষ মহুর্তে বেচাকেনা জমে উঠবে।
গরুর বাজার ইজারাদার জানান, ভারতীয় গরু হাটে কম আসায় উপজেলার বিভিন্ন হাটে এর প্রভাব পড়েছে। এ কারনে দেশী গরুর দাম প্রতি হাটে অনেক বেশী।
জকিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজন কুমার সিংহ জানান, কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে জকিগঞ্জ উপজেলার গরুর হাটগুলো জমে উঠেছে। বিশৃংখলা এড়াতে আমরা নতুন ৩টি গরুর হাট অনুমোদন নিয়ে এসেছি। এ পর্যন্ত কোথাও কোন বিশৃংখলার খবর পাওয়া যায়নি।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad