Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জে অভিভাকের হাতে শিক্ষক লাঞ্চিত!

জকিগঞ্জে অভিভাকের হাতে শিক্ষক লাঞ্চিত!

Written By zakigonj news on সোমবার, ১ জানুয়ারী, ২০১৮ | ৮:১৫ PM

স্টাফ রিপোর্টার
জকিগঞ্জ উপজেলার হাড়িকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লেখাপড়া মান নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে বিদ্যালয়ের অভিভাবক গোটারগ্রামের বদরুল হক লস্করের হাতে আবু সালমান (শিব্বীর) নামের এক শিক্ষক লাঞ্চিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার গোটারগ্রাম ত্রিমোহনীতে এ ঘটনা ঘটে। এনিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার শুরু হয়েছে।
বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আবু সালমান শিব্বীর বলেন, বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর প্রথম রোল নাম্বারের ছাত্রী নাঈমা হক লস্কর বার্ষিক পরীক্ষায় দ্বিতীয় নাম্বার হওয়ায় তার পিতা বদরুল হক লস্কর রোববার বিদ্যালয়ে এসে উত্তেজিত হয়ে উঠেন। তার এহেন আচরণে শিক্ষকরা কিছু না বলে সোমবার বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মস্তাক আহমদ লস্করের নিকট বিচার দিতে গেলে বদরুল হক লস্কর এসে সভাপতির সামনে পুনরায় উত্তেজিত হয়ে জনসম্মুখে আমাকে মারধর করেন।
তবে অভিযুক্ত বদরুল হক লস্কর বলেন, ওই শিক্ষক প্রথমে তাকে ঘুষি মারলে তিনি তার উপর হাত তুলেন। তিনি বলেন, আমি বিদ্যালয়ের লেখাপড়া মানোন্নয়নে কথা বললে ওই শিক্ষক আমার উপর রাগান্বিত হয়ে খুব খারাপ আচরণ করেন। তার কথাবার্তা খুব অশালীন ছিল যা কোন শিক্ষকের নিকট থেকে পাওয়া কাম্য নয়।
এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান আলম বলেন, আমার বিদ্যালয়ের সহকারি আবু সালমান শিব্বীরকে গোটারগ্রামের বদরুল হক লস্কর জনসম্মুখে লাঞ্চিত করেছেন। শিক্ষকের মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অত্যান্ত দুঃখজনক ও লজ্জাজনক এ ঘটনার বিচার চাই। তিনি বলেন, বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার চেষ্ঠা করা হলেও আমরা তাতে সাড়া দেইনি।
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মস্তাক আহমদ লস্কর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি আমরা সমাধান করে দিয়েছি।
জকিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুস শহীদ তাপাদার এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, আমরা শিক্ষকের উপর নির্যাতনকারীর বিচার দাবী করছি।
এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনার সুষ্ট বিচাররের লক্ষে মঙ্গলবার এলাকাবাসী বসবে। সেই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।
Share this article :

২টি মন্তব্য:

  1. শিক্ষকের গায়ে হাত তোলা, আর জাতীকে অপমান করা একই।। ঐ অভিভাবক নামের কুলাঙ্গারের নজীরবিহীন শাস্তি চাই।
    আর শিক্ষক নামে যারা শুধু বেতন নেয়ার জন্য হাজিরা দিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন,তারা কি জাতীর ভবিষ্যৎ ধ্বংশ করছেন না? আপনি কি এই জাতীকে বিশ্বমানচিত্রে হেয় করতে একটুও কুণ্ঠাবোধ করেন না?
    প্রশ্ন রইল দূর্নিতিবাজ, মোবাইলবাজ শিক্ষক শিক্ষিকার বিবেকের কাছ। আর ঐসব শিক্ষক শিক্ষিকার কাছে যারা নিজের সন্তানকে সরকারী স্কুলে চাকরী করে প্রাইভেট স্কুলে পড়াচ্ছেন।
    মনে রাখবেন জোয়ার না আসলে নদিতে উর্মি আসে না। এসএসসি পাশ করে বাংলাদেশে পিয়নের চাকরী হয়না,আর আপনি শিক্ষক। সুতরাং চাকরীটাকে আয়েরর উৎস না ভেবে, এবাদত হিসেবে গ্রহণ করুন। তাহলে ওপারে ভাল থাকবেন। আর আমরা অভিভাবক যারা ওরা যেন নিজেকে মূল্যায়ন করি, যে আমি কি স্কুল,কলেজ বা ভার্সিটির বারান্দায় গিয়েছি? যদি না যাই তাহলে, চিন্তা করবেন ওরা ঐ সকল প্রতিষ্ঠান থেকে স্বীকৃতি পেয়ে সার্টিফিকেট নিয়ে পরীক্ষা দিয়ে মা বাবার রক্ত পানি করে এখানে স্ব-যোগ্যতায় এসেছে।ওদের সম্মান আছে। আছে নৈতিকতা ও সমাজ স্বীকৃতি।
    ভুল ত্রুটি, পক্ষ-বিপক্ষ না ভেবেই মনোব্যথা প্রকাশ করলাম। ক্ষমা করবেন। For give is diven!

    উত্তর দিনমুছুন
  2. শিক্ষকের গায়ে হাত তোলা, আর জাতীকে অপমান করা একই।। ঐ অভিভাবক নামের ব্যক্তির ও শিক্ষকের তদন্তপূর্বক উপযুক্ত শাস্তি চাই। আর শিক্ষক নামে যারা শুধু বেতন নেয়ার জন্য হাজিরা দিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন,তারা কি জাতীর ভবিষ্যৎ ধ্বংশ করছেন না? আপনি কি এই জাতীকে বিশ্বমানচিত্রে হেয় করতে একটুও কুণ্ঠাবোধ করেন না?
    প্রশ্ন রইল দূর্নিতিবাজ, মোবাইলবাজ শিক্ষক শিক্ষিকার বিবেকের কাছ। আর ঐসব শিক্ষক শিক্ষিকার কাছে যারা নিজের সন্তানকে সরকারী স্কুলে চাকরী করে প্রাইভেট স্কুলে পড়াচ্ছেন।
    মনে রাখবেন জোয়ার না আসলে নদিতে উর্মি আসে না। এসএসসি পাশ করে বাংলাদেশে পিয়নের চাকরী হয়না,আর আপনি শিক্ষক। সুতরাং চাকরীটাকে আয়েরর উৎস না ভেবে, এবাদত হিসেবে গ্রহণ করুন। তাহলে ওপারে ভাল থাকবেন। আর আমরা অভিভাবক যারা ওরা যেন নিজেকে মূল্যায়ন করি, যে আমি কি স্কুল,কলেজ বা ভার্সিটির বারান্দায় গিয়েছি? যদি না যাই তাহলে, চিন্তা করবেন ওরা ঐ সকল প্রতিষ্ঠান থেকে স্বীকৃতি পেয়ে সার্টিফিকেট নিয়ে পরীক্ষা দিয়ে মা বাবার রক্ত পানি করে এখানে স্ব-যোগ্যতায় এসেছে।ওদের সম্মান আছে। আছে নৈতিকতা ও সমাজ স্বীকৃতি।
    ভুল ত্রুটি, পক্ষ-বিপক্ষ না ভেবেই মনোব্যথা প্রকাশ করলাম। ক্ষমা করবেন। For give is diven!

    উত্তর দিনমুছুন

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad