Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টির আগামীর স্বপ্ন এম. জাকির হুসেইন

জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টির আগামীর স্বপ্ন এম. জাকির হুসেইন

Written By zakigonj news on শুক্রবার, ৭ জুলাই, ২০১৭ | ২:০৬ AM

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটে জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে যে কয়জন তরুণ রাজনীতিবিদ নিজ প্রতিভায় জ্বলে উঠতে সক্ষম হয়েছেন, এম. জাকির হুসেইন তাদের মধ্যে বিস্ময়কর এক নাম! তিনি ব্যক্তিস্বার্থের উর্ধ্বে উঠে প্রচলিত রাজনীতির নানান অসঙ্গতি-বৈপরীত্য, কোন্দল ও আদর্শবিচ্যুতিকে পাত্তা না দিয়ে এক ঝাঁক স্বচ্ছ ও মেধাবী কর্মী গড়ে তোলার মাধ্যমে ইতিমধ্যে জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন তাঁর বিস্ময়কর রাজনৈতিক প্রতিভার। জাতীয় পার্টির ছাত্র সংগঠন জাতীয় ছাত্র সমাজ থেকে বেড়ে উঠা জাকির হুসেইন এখন জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টির আগামীর স্বপ্ন। জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টিতে সময়ে সময়ে প্রতিনিধিত্বকারী কথিত সুযোগ সন্ধানী নেতাদের বিপরীতে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা হিসেবে পরিচিতি এম. জাকির হুসেইনকে আগামীর কান্ডারী হিসেবে দেখতে চায় জাতীয় পার্টি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তৃণমূল জাপার স্থানীয় নেতাকর্মীদের মতে, এম. জাকির হুসেইন-ই হচ্ছেন জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টির ইতিহাসে একমাত্র পরীক্ষিত নেতা। তিনি জাতীয় পার্টির ছাত্র সংগঠন জাতীয় ছাত্র সমাজ ও যুব সংহতির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের পর জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটি স্থান করে নিয়েছেন। তার যোগ্যতা ও দক্ষতা দেখে এই অল্প বয়সে-ই জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ তাকে কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির সদস্য হিসেবে মনোনীত করেছেন। তাই তৃণমূল জাপা নেতাকর্মীরা মনে করেন, দীর্ঘদিন পরে হলেও তারা জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টিতে একজন কর্মী বান্ধব ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা পেয়েছেন। সূত্র জানায়, স্বপ্ন, সাহস আর সততাকে পুজি করে পারিবারিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে দূর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছেন এম. জাকির হুসেইন। এই অল্প বয়সে তিনি কোথায় থেকে কোথায় গিয়ে পৌঁছেন তার হিসেব মিলানোটা খুবই কঠিন। জানা যায়, এম. জাকির হুসেইন সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাজল গ্রামের আব্দুল লতিফ তাপাদারের ছেলে। ৩ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে সবার বড় তিনি। সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান জাকির হুসেইনের বেড়ে ওঠা জকিগঞ্জেই। স্থানীয় গণিপুর কামালগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি শেষে সিলেট সরকারি কলেজে ভর্তি হন। এখান থেকে এইচএসসি শেষ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেন জাকির হুসেইন। এলাকায়, তাঁর পরিবার শিক্ষিত ও আদর্শ পরিবার হিসেবে পরিচিত। তাঁর ভাই-বোন সকলেই গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। তন্মধ্যে তার ছোট ভাই মেধাবী ছাত্র 'জসির' প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণ পদকে ভূষিত হয়েছেন। জানা যায়, কলেজে জীবনের শুরুতেই জাকির হুসেইন রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। জাতীয় পার্টির ছাত্র সংগঠন জাতীয় ছাত্র সমাজের মাধ্যমেই তার রাজনৈতিক জীবনের সূচনা। তিনি ছাত্র সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্ব পালন শেষে নিজ যোগ্যতা বলে সিলেট জেলা ছাত্র সমাজের সভাপতির দায়িত্ব ছাড়াও কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি হিসেবেও দীর্ঘদিন দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৩ সালে সস্ত্রীক যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামে প্রবাস জীবন শুরু করলেও থেমে যায়নি তার রাজনৈতিক কার্যক্রম। তিনি জড়িয়ে পড়েন যুক্তরাজ্য যুব সংহতির রাজনীতিতে। গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বও পালন করেন জাকির। মেধাবী জাকির হুসেইন নিজ যোগ্যতা বলে জাতীয় পার্টির বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে নিজেকে স্থান করে নিয়েছেন। তাঁর এই অগ্রযাত্রাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। একমাত্র পরীক্ষিত নেতা হিসেবে তাকেই চিহ্নিত করেছেন জাপা নেতাকর্মী। আগামী নির্বাচনে জকিগঞ্জ-কানাইঘাট আসনে তাকে 'লাঙ্গল' মার্কার প্রার্থী হিসেবেও স্বপ্ন দেখেছেন অনেক নেতাকর্মী। অপরদিকে জাকির হুসেইন যুক্তরাজ্যে থাকলেও দেশের তরে মন পড়ে থাকে। জাতীয় পার্টি ও তার অঙ্গ সংগঠনের যে কোন কর্মসূচি পালনে কিংবা পার্টির যে কোন নেতা কর্মীর সমস্যায় নিজ সাধ্যমত উদার মনে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। এ কারণে তিনি খুব অল্প সময়েই জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টি কর্মী বান্ধব নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছেন। জাপার স্থানীয় বেশ কিছু নেতাকর্মী জানান, জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টিতে এম. জাকির হুসেইনের বিকল্প নেই। তিনি একজন ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা। দীর্ঘদিন যাবত তিনি জাতীয় পার্টি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। তার দক্ষ নেতৃত্বে আগামীতে জকিগঞ্জ কানাইঘাট জাতীয় পার্টি ঐক্যবদ্ধ এবং সুসংগঠিত হওয়ার স্বপ্ন দেখে। পার্টির প্রতি তার শ্রম এবং ত্যাগ সর্বজনবিদিত। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছাত্রজীবন থেকেই কর্মচঞ্চল ও পরিশ্রমী ছিলেন জাকির। ভালো কিছু করার চেষ্টা সব সময়ই তাকে তাড়িয়ে বেড়ায়। কলেজে জীবনেই তিনি পড়া লেখার ফাঁকে সিলেট নগরীর শাহী ঈদগাহ এলাকায় প্রিন্টিং প্রেস ও ফার্মেসি খুলেন। এ ব্যবসার আয় দিয়ে নিজের রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিভিন্ন খরচ মেটাতেন। প্রবাসে গিয়েও ভালো কিছুর স্বপ্ন দেখেন তিনি। যুক্তরাজ্যে সিংহভাগ বাংলাদেশী, বিশেষ করে সিলেটিরা রেস্টুরেন্টে কাজ করলেও ব্যতিক্রমী জাকির রেস্টুরেন্টে কাজ না করে সাধারণ শ্রমিক হিসেবে কাজ শুরু করেন একটি প্লাস্টিক কোম্পানীতে। কঠোর পরিশ্রম ও আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন নিয়ে কাজ করতে থাকেন তিনি। তাই জাকিরের সাহস, সততা আর একাগ্রচিত্তে পরিশ্রম বৃথা যায় নি। যে প্রতিষ্ঠানে একজন সাধারণ শ্রমিক হিসেবে যোগ দেন জাকির, সেই প্রতিষ্ঠানই কিনে ফেলেন তিনি! নতুন নাম, ‘জেডএইচ কে প্লাস্টিক লিমিটেড’ নামে গড়ে ওঠে সেই প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে প্রতিবছর জাকিরের টার্নওভার কয়েক মিলিয়ন পাউন্ড! ব্রিটেনের বিভিন্ন কোম্পানী ছাড়াও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে যায় জাকিরের প্রতিষ্ঠানের পণ্য। বৃটেনে মাত্র কিছু দিন পূর্বে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে সে দেশে বাছাইকৃত সেরা বাঙ্গালী শিল্পপতি হিসেবে সম্মাননা পদকে ভূষিত করা হয়েছে জাকিরকে। সে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিনিধি ছাড়াও যুক্তরাজ্য সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। জাকিরের মতে, ‘সততা ও বিশ্বস্তার পাশাপাশি নিজেকে অহংকার মুক্ত রেখে কাজ করলে যে কারো পক্ষে এগিয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। তিনি বলেন, ‘আমি শুরু থেকেই কঠোর পরিশ্রম করেছি। সাত বছর শ্রমিক হিসেবে কাজ করেছি। এক যুগ আগে যুক্তরাজ্যে পাড়ি দিয়ে সামান্য একজন শ্রমিক হিসেবে কাজ শুরু করে এখন আমি একটি কোম্পানীর মালিক। সম্প্রতি আমাকে যুক্তরাজ্যে যে সম্মাননা পদক দেওয়া হয়েছে এটা আমার কোন গৌরব নয়, এটা পুরো বাঙ্গালীর গৌরব। রাজনীতি প্রসঙ্গে জাকির বলেন, জাতীয় ছাত্র সমাজ দিয়ে আমার রাজনীতি শুরু আর জাতীয় পার্টিতেই আমার রাজনীতি শেষ করতে চাই। রাজনৈতিক জীবনে এর বাইরে কোন কিছু করার চিন্তা আমার নেই। কেননা আমি জাতীয় পার্টিকে মনে প্রাণে ভালোবাসি এবং সাবেক সফল রাষ্ট্র নায়ক পল্লীবন্ধু আলহাজ্ব হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদকে বিশ্বাস করি। তিনি বলেন, আমি ব্যক্তিগত স্বার্থের উর্ধ্বে রাজনীতিকে দেখি। আমার বিশ্বাস রাজনীতি একটি ইবাদত। তাই ছাত্র জীবন থেকেই রাজনীতি করে আসছি। প্রবাস জীবনেও নানা ব্যাস্ততার ফাঁকে রাজনীতিতে সময় দেই। সব কিছুর ফাঁকে আজও জাতীয় পার্টির পাশে আছি এবং আগামীতে থাকবো। তৃণমূল নেতাকর্মীরা সংগঠনের প্রাণ। তাই প্রবাস জীবনে সময় ও সুযোগে নেতাকর্মীদের খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করি। নেতাকর্মীদের সমস্যা শুনলে সামর্থ্য অনুযায়ী সহযোগিতার চেষ্টা করি। পার্টির কর্মসূচীতে কোন না কোন ভাবে শরিক থাকার চেষ্টা করি। এ কারণেই হয়তো জকিগঞ্জ-কানাইঘাট জাতীয় পার্টি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের আমাকে নিয়ে কিছুটা আগ্রহ। নির্বাচন প্রসঙ্গে জাকির বলেন, পার্টি আমাকে মনোনীত করলে আমি নিজ এলাকা ও পার্টির স্বার্থে নির্বাচন করবো। ব্যক্তিগত স্বার্থে আমি নির্বাচন করতে আগ্রহী নই।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad