Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জে ইউপি নির্বাচন: কাজলসায় ফাঁকা মাঠে গোল দিচ্ছেন চেরাগ আলী!

জকিগঞ্জে ইউপি নির্বাচন: কাজলসায় ফাঁকা মাঠে গোল দিচ্ছেন চেরাগ আলী!

Written By zakigonj news on সোমবার, ৩০ মে, ২০১৬ | ১১:৪৯ AM

রহমত আলী হেলালী
জকিগঞ্জ উপজেলার মর্যাদাপূর্ণ ৩নং কাজলসার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আগামী ৪ জুন, শনিবার। ৩টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড ও ৯টি সাধারণ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৬,৫৭৪ জন। তন্মধ্যে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৯ জন প্রার্থী। প্রার্থীরা হলেন আওয়ামীলীগ মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত লুৎফুর রহমানের ছেলে জুলকারনাইন লস্কর (নৌকা), বিএনপি মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট মোস্তাক আহমদ (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রবাসী জামাল উদ্দিন (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ বাহাদুর (ঘোড়া), সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জহুরুল হক খসরু (চশমা), সাবেক মেম্বার বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আলহাজ্ব চেরাগ আলী (টেবিল ফ্যান), সিলেট মহানগর যুবলীগ নেতা আতিকুর রহমান মনি (আনারস), উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ আব্দুল গফুর (মোটর সাইকেল) ও প্রবাসী আবুল হোসেন (টেলিফোন)। সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী জুলকারনাইন লস্কর নৌকা প্রতীক নিয়ে বেশ সুবিদাজনক অবস্থানে থাকলেও নানা কারণে নিজ এলাকায় ক্রামেই তার ভোট কমছে। এছাড়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ অধ্যুষিত এলাকা যশা, জামালপুর, নিলাম্বরপুর ও কামালপুরসহ বেশ কিছু এলাকা থেকে পর্যাপ্ত ভোট টানতে পারছেন না বলে মনে করছেন এলাকাবাসী। সচেতন মহলের মতে, নৌকার প্রতি এ ইউনিয়নের মানুষের টান থাকলেও প্রার্থী নিয়ে অনেকের-ই অনীহা রয়েছে। এছাড়া এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের আরোও ৩ জন বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় শেষ পর্যন্ত জুলকারনাইন লস্কর সুবিদা করতে পারছেন না বলে মনে করেন এলাকাবাসী। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এডভোকেট মোস্তাক আহমদ সাবেক নয় বছরের সফল চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকায় তার ব্যাপক পরিচিতি ও খ্যাতি রয়েছে। তবে তার নিজ এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল হোসেন থাকায় অনেকটা বেকায়দায় রয়েছেন তিনি। জামালপুর ও যশা এলাকায় এখন পর্যন্ত সুবিদা করতে না পারায় তাকে নিয়ে চরম দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন বিএনপি ঘরানার অনেকেই। সচেতন মহলের মতে, নিজ এলাকা মাতারগ্রাম ও জামালপুর দু’টি কেন্দ্রে পর্যাপ্ত ভোট টানতে সক্ষম হলে মোস্তাক আহমদ মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চলে আসবেন। কেননা ইউনিয়নের প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে মোস্তাক আহমদের দলীয় ও ব্যাক্তি ইমেজে বড় ধরণের ভাগ রয়েছে। জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রবাসী জামাল উদ্দিনকে নিয়ে ভোটারদের তেমন মাথা ব্যাথা নেই। তাদের মতে, জামাল উদ্দিন প্রবাসে থাকেন এবং ভালো টাকা-পয়সা রুজি করেন। তাই নির্বাচন উপলক্ষে দেশে এসেছেন পরিচিত হওয়ার জন্য। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির বিদ্রোহী আলহাজ্ব চেরাগ আলী এবার বেশ সুবিদাজনক অবস্থানে রযেছেন। তিনি এবার ফাঁকা মাঠে গোল দিচ্ছেন বলে সাধারণ ভোটারদের ধারণা। কেনানা আটগ্রাম, মাতারগ্রাম ও কামালপুর এলাকায় একাধিক প্রার্থী থাকায় নিজ এলাকায় একা থেকে সুবিদা করে নিয়েছেন চেরাগ আলী। কাজলসার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচনে বেশ কয়েকবার তিনি প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে বার বার সামান্যের জন্য হেরে গেলেও এবার তিনি চমক দেখাতে পারেন বলে মনে করছেন অনেকেই। তবে সচেতন মহলের অনেকের মতে, চেরাগ আলী ভোটের আগে প্রতিবার-ই বিপূল ভোটে এগিয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত জাতিগত কারণে তিনি পিছিয়ে পড়েন। এবারও তার ব্যতিক্রম হওয়ার কথা নয়। কারণ শেষ পর্যন্ত চেরাগ আলীর নিজ এলাকা থেকে নৌকার প্রার্থী বেশ কিছু ভোট নিয়ে আসবেন এবং বর্তমান চেয়ারম্যান এম.এ.রশীদ বাহাদুর খোদ চেরাগ আলীর জাতিগত বেশ কিছু ভোটে ভাগ বসাবেন। এতে করেই পিছিয়ে পড়বেন শাক্তিশালী প্রার্থী চেরাগ আলী। আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক দু’বারের চেয়ারম্যান জহুরুল হক খসরু এবার চরম বিপাকে পড়েছেন। প্রার্থী হিসেবে তিনি বেশ শক্তিশালী হলেও এবার তাঁর ভোট ব্যাংকে হানা দিয়েছেন একই গ্রামের প্রতিবেশী আতিকুর রহমান মনি। প্রার্থী হিসেবে আতিকুর রহমান মনি কিছুতেই পিছিয়ে নেই। তিনি সাবেক ভূমি প্রশাসন ও ভূমি সংস্কার মন্ত্রী মরহুম এম.এ.হকের সম্পর্কে নাতি ও এ ইউনিয়নের সাবেক দু’বারের চেয়ারম্যান মরহুম মাশুকুর রহমান সোহাগ চেয়ারম্যান এর ভতিজা। ব্যক্তিগতভাবে আতিকুর রহমান মনি আওয়ামীলীগ ঘরানার লোক। তিনি সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য। তাই একই এলাকায় জহুরুল হক খসরু ও আতিকুর রহমান মনি প্রার্থী হওয়ায় উভয়ের-ই চরম ভরাডুবির আশংকা করছেন ভোটাররা। আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল গফুর ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা ও শোডাউন করলেও নতুন প্রার্থী হিসেবে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে পারবেন বলে মনে করছেন না ভোটাররা। এছাড়া প্রবাসী আবুল হোসেনকেও কোন শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে মনে করছেন না ভোটাররা। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এম.এ.রশীদ বাহাদুর সময়ে সময়ে সুবিদাজনক অবস্থানে চলে আসছেন বলে মনে করেন সচেতন মহলের অনেকেই। তাদের মতে, আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আটগ্রাম অঞ্চলের জুলকারনাইন লস্কর সময়ে সময়ে একই এলাকার রশীদ চেয়ারম্যানের কৌশলের নিকট হেরে যাচ্ছেন। ফলে এম.এ.রশীদ বাহাদুর আটগ্রাম অঞ্চল থেকে বড় অংকের ভোট টানতে সক্ষম হবেন। তাছাড়া বর্তমান চেয়ারম্যান হিসেবে তার প্রতিটি এলাকায় ভোট ব্যাংক রয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী চেরাগ আলীর সাথে মূল প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে বাকি ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থীর যে কোন একজনের। এক্ষেত্রে আলোচনায় রয়েছেন ধানের শীষ মার্কার প্রতিনিধি এডভোকেট মোস্তাক আহমদ, নৌকা মার্কার প্রতিনিধি জুলকারনাইন লস্কর ও বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী এম.এ.রশীদ বাহাদুর। এদিকে কাজলসার ইউনিয়নের ৩টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড রয়েছে। তন্মধ্যে ১নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৬৯৭৮ জন। এ ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৫ জন মহিলা প্রার্থী। তারা হলেন, আছিয়া বেগম (বক), চন্দনী রানী দেব (তালগাছ), তাহমিনা আক্তার (হেলিকপ্টার), পারুল আকতার (বই) ও সুলতানা বেগম (মাইক)। ২নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৪১৪১ জন। এ ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ২ জন মহিলা প্রার্থী। তারা হলেন, জয়া বালা বিশ্বাস (তালগাছ) ও মোছাঃ রোশনা বেগম রফা (মাইক)। ৩নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৫৫৩৫ জন। এ ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৩ জন মহিলা প্রার্থী। তারা হলেন, লিলাবালা বিশ্বাস (মাইক), শ্রী অঞ্জলী রাণী (তালগাছ) ও সালেহা বেগম (হেলিকপ্টার)। অন্যদিকে ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে মেম্বার পদে নতুন-পুরাতন অনেকেই প্রার্থী হয়েছেন। তন্মধ্যে ১নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৫৬১ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৪ জন। তারা হলেন, অজয় কুমার লস্কর (টিউবওয়েল), উস্তার হোসেন চৌধুরী (ফুটবল), জাহেদ আহমদ (মোরগ) ও মোঃ জামাল আহমদ (তালা)। ২নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩৮৯৩ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৩ জন। তারা হলেন, আবুল কালাম আজাদ (মোরগ), মোঃ আব্দুস ছালাম (টিউবওয়েল) ও সালেহ আহমদ কবীর (ফুটবল)। ৩নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৫১৬ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৩ জন। তারা হলেন, মোঃ এবাদুর রহমান (টিউবওয়েল), মোঃ জমির আলী (তালা) ও মোঃ ফারুক আহমদ (ফুটবল)। ৪নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৭১১ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৪ জন। তারা হলেন, আব্দুল কুদ্দুছ (টিউবওয়েল), মোঃ ইসহাক আলী (ফুটবল), মোঃ আব্দুস সালাম (মোরগ) ও মোঃ কফিলুজ্জামান (তালা)। ৫নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১২১১ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৩ জন। তারা হলেন, ইয়াছিন আলী (মোরগ), মোঃ পারভেজ আহমদ (তালা) ও মোঃ শফিকুল ইসলাম (ফুটবল)। ৬নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১১৩৯ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৫ জন। তারা হলেন, কুঞ্জলাল বিশ্বাস (মোরগ), গৌছ উদ্দিন (ফুটবল), মানিক সরকার (আপেল), মোঃ আব্দুর রহমান (তালা) ও মোঃ ছাব্বির আহমদ (টিউবওয়েল)। ৭নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ২১৫৭ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৭ জন। তারা হলেন, আতিকুর রহমান (ফুটবল), আব্দুল আহাদ (টিউবওয়েল), এসএম মৌলানা আব্দুর রশীদ (বৈদ্যুতিক পাখা), ফারুক আহমদ (তালা), মাহবুব মিছবাহ (আপেল), মোঃ আজিজুর রহমান (তালা) ও সাব্বির আহমদ (ভ্যানগাড়ি)। ৮নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৭২৮ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৫ জন। তারা হলেন, আব্দুল আজিজ (মোরগ), ছমির উদ্দিন (ফুটবল), জইন উদ্দিন (তালা), মঈন মিয়া (আপেল) ও শাহিন আহমদ (টিউবওয়েল)।  ৯নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৬৫০ জন। মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৫ জন। তারা হলেন, মোঃ জাবের হোসেন (ফুটবল), পতেন্দ্র বিশ্বাস (টিউবওয়েল), রাতুল বিশ্বাস (মোরগ), শ্রী ধঞ্জয় বিশ্বাস (আপেল) ও সুজিত বিশ্বাস (তালা)। আগামী ৪ জুন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এ ইউনিয়নে পৃথক পৃথক ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ সময় এ ইউনিয়নের ভোটাররা তাদের পছন্দের ১জন চেয়ারম্যান, ১জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা ও ১ জন সাধারণ সদস্যকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবেন।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad