Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জে মোবাইল ফোনে পর্ণভিডিও’র ছড়াছড়ি

জকিগঞ্জে মোবাইল ফোনে পর্ণভিডিও’র ছড়াছড়ি

Written By zakigonj news on বুধবার, ২৫ মার্চ, ২০১৫ | ৫:৫১ PM

রহমত আলী হেলালী
জকিগঞ্জে প্রযুক্তির উৎকর্ষের ফলে সাম্প্রতিক সময়ে উপজেলার ছোট-বড় সবার হাতে মোবাইল ফোন। এ সুযোগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জকিগঞ্জে পর্ণভিডিও’র বিস্তার মহামারি ভাইরাসের মত ছড়িয়ে পড়ছে। জানা যায়, মোবাইল ফোনে সকল ধরনের সুবিধা থাকায় মেমোরীতে পর্ণভিডিও ঢুকিয়ে উঠতি বয়সি তরুণ ও যুবকরা হাটে-মাঠে-ঘাটে সর্বত্রই চষে বেড়াচ্ছে। এ ক্ষেত্রে বাদ পড়ছেন না শিশু ও বয়োজ্যৈষ্ঠ ব্যক্তিরাও। আইনে ১৮ বছরের কমবয়সীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ থাকলেও আইনকে তোয়াক্কা না করে শিশু-কিশোরের হাতেও নানারঙের মোবাইল শোভা পাচ্ছে। সিমফোনি, ম্যাক্সিমাস, স্মার্ট, ওয়েস্টার্ন, জি-ফাইভ, নোকিয়া মোবাইলগুলোর দাম এখন হাতের নাগালে থাকায় বিক্রি হচ্ছে দেদারছে। তাই হাতে হাতে মোবাইলের মাধ্যমে বিভিন্নভাবে ছড়িয়ে পড়ছে পর্ণো ভিডিও। জকিগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মতো আনাচে কানাচে গজিয়ে উঠা ডাউনলোডের দোকান গুলোতে ১০ টাকায় মিলছে এসব পর্ণোগ্রাফি। বাংলা, ইন্ডিয়ান, চায়না, পাকিস্তানি সেক্সি যৌনকর্মীদের নগ্ন রগরগে এসব পর্ণো টিনএজ সেক্স ভিডিওগুলো আপলোড-ডাউনলোডের দোকান থেকে মোবাইলের মেমোরীতে লোড নিচ্ছে দেদারছে। এসব দেখার যেন কেউ নেই! প্রশাসন বা কারও যেন কোন দায়িত্ব নেই; কোন প্রকার উদ্যোগও লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। যার দরুণ এখন জকিগঞ্জে এখন যৌন হয়রানি ও ধর্ষণ আগের চেয়ে বেড়ে গেছে। ধর্ষিত হচ্ছে আট বছরের মেয়ে শিশু পর্যন্ত। সরেজমিন অনুসন্ধানে দেখা যায়, উপজেলার বিভিন্ন ডাউনলোড দোকানগুলোতে উঠতি বয়সি তরুণদের ভীড় লক্ষণীয়। এ সময় বিভিন্ন বয়সী গ্রাহকদের এসব পর্ণোভিডিও নিতে দেখা যায়। এছাড়াও ব্লু টুথের মাধ্যমে একজন আরেকজনের মোবাইলে সহজেই শেয়ার করছে এগুলো। সচেতন মহল মনে করেন, এখনি এসব প্রতিরোধ করতে না পারলে আগামীতে প্রজন্ম নিশ্চিত অজানা গন্তব্যের দিকে পা বাড়াবে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জকিগঞ্জ উপজেলায় সবমিলিয়ে প্রায় শ’খানেক ডাউনলোডের দোকান রয়েছে। দোকানগুলোতে অডিও, ভিডিও, মুভি, নাটকের পাশাপাশি এক ধরণের প্রকাশ্যেই পর্ণোছবি মোবাইলের মেমোরিতে ডাউলোড করে নিচ্ছে উৎসুক গ্রাহকরা। এ সময় গ্রাহকরা শুধু স্থানীয় ভাষায় সাংকেতিক শব্দ ‘হতা আছেনি’ বললেই ডাউনলোড ব্যবসায়ী বুঝে নিয়ে মেমোরিতে লোড করে দেন এসব। এ ব্যবসায় গ্রাহকদের কেমন চাহিদা সম্পর্কে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুুক এক ডাউনলোড ব্যবসায়ী জানান, বিদেশি পর্ণের চাহিদা এখন আর তেমন নেই। চাহিদা দেশি পর্ণছবি। তিনি আরও জানান, ভারতের মিজোরাম, মেঘালয়া, অসমিয়া, কোলকাতা ও বাংলাদেশি যৌনকর্মীর, ভালবাসার নামে ডেটিংয়ের, খেলার ছলে অথবা গোপন ক্যামেরায় তোলা জোরপূর্বক ধর্ষণের রগরগে ভিডিও দৃশ্য বাজারে পাওয়া যায়। এর মধ্যে শিশুদের পর্ণোগ্রাফির চাহিদা সবচেয়ে বেশি। উপজেলার জামেয়া মোহাম্মদিয়া হাড়িকান্দির শিক্ষক মাওলানা আব্দুল মুকিত বলেন, পর্ণছবি দেখে শিশু-কিশোররা জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপরাধের সাথে। ইভটিজিং, ধর্ষণ, নির্যাতন, খুন এবং আত্মহত্যার মতো ভয়ঙ্কর ঘটনাগুলো ঘটে চলেছে এই পর্ণোছবির ফল হিসেবে। তিনি বলেন, আলেম-ওলামা ও পীর মাশায়েখদের জন্ম মাটি জকিগঞ্জে এখন প্রতিনিয়ত নারী ও শিশুরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। অপরদিকে প্রেম ভালোবাসার নামে নিভৃতে মিলিত হয়ে অবৈধ কার্যক্রম বাড়ছে দিনদিন। আবার কখনও কখনও মোবাইলের মাধ্যমে গোপন ও আপত্তিকর ছবি ইন্টারনেটে প্রকাশের কারণেও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে। অথচ পর্ণাগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ করতে সরকার ২০১২ সালে সংসদে “পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ বিল ২০১২” পাস করে। পর্ণেগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের ০২ ধারায় বলা আছে, ‘যৌন উত্তেজনা সৃষ্টিকারী কোনো অশ্লীল সংলাপ, অভিনয়, অঙ্গভঙ্গি, নগ্ন বা অর্ধনগ্ন নৃত্য, যা চলচ্চিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও ভিজুয়ালচিত্র, স্থিরচিত্র, গ্রাফিক্স বা অন্যকোনও উপায়ে ধারণকৃত ও প্রদর্শনযোগ্য এবং যার কোনো শৈল্পিক বা শিক্ষাগত মূল্য নেই। এছাড়া যৌন উত্তেজনা সৃষ্টিকারী অশ্লীল বই, সাময়িকী, ভাস্কর্য, কল্পমূর্তি, মূর্তি, কার্টুন বা লিফলেট বা এগুলোর নেগেটিভ বা সফ্ট ভার্সনও পর্ণোগ্রাফির আওতাভুক্ত হবে। আইনের ০৪ ধারামতে পর্ণগ্রাফি উৎপাদন, সংরক্ষণ, বাজারজাতকরণ, বহন, সরবরাহ, ক্রয়-বিক্রয় ও প্রদর্শন করা যাবে না। করলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য হবে। ৮/১ অনুসারে কোনো ব্যক্তি পর্ণোগ্রাফি উৎপাদন বা এ উদ্দেশ্যে অংশগ্রহণকারী সংগ্রহ করে চুক্তিপত্র তৈরি করলে অথবা কোন নারী-পুরুষ বা শিশুকে প্রলোভন দেখিয়ে, তাকে জানিয়ে স্থির, ভিডিও বা চলচ্চিত্র ধারণ করলে সর্বোচ্চ ৭ (সাত) বছর পর্যন্ত সশ্রম কারাদন্ড এবং ২ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন। ৮/৩ ধারা অনুসারে কোন ব্যক্তি ইন্টারনেট বা ওয়েবসাইট বা মোবাইল ফোন বা অন্যকোন ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে পর্ণগ্রাফি সরবরাহ করলে তিনি অপরাধ করেছেন বলে গণ্য হবেন এবং উক্তরূপ অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ ৫ (পাঁচ) বছর পর্যন্ত সশ্রম কারাদন্ড এবং ২ লাখ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন। তাই আমাদের এ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। পাশাপাশি প্রশাসন কর্তৃক উপজেলার বিভিন্ন বাজারে অবস্থিত কম্পিউটার দোকানগুলোয় তল্লাসী চালিয়ে পর্ণগ্রাফি সরবরাহ ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে আগামী প্রজন্মকে এ ভয়াল নেশা থেকে সরিয়ে আনার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad