Headlines News :
Home » » জনগণ শান্তি ও স্বস্তি চায়

জনগণ শান্তি ও স্বস্তি চায়

Written By zakigonj news on শুক্রবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০১৫ | ৮:১৫ PM

জকিগঞ্জসহ সারাদেশে ৫ জানুয়ারীকে ঘিরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি চলছে। এতে জনগণের দুর্ভোগ ও হয়রানি বাড়ছে। সরকার ও ২০দলীয় জোটের গণতন্ত্র হত্যা দিবস এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দ্বিমুখী মিশনে জনগণের জ্বলে পুড়ে মরছে। এই অবস্থা থেকে জনগণের কবে নাগাদ পরিত্রাণ মিলবে এরও কোনো সঠিক ধারণা করা যাচ্ছে না। এমন সংঘাতময় পরিস্থিতিতে আমাদের রাজনীতির ভবিষ্যত্ কী? দেশের অর্থনীতি, ব্যবসা বাণিজ্যেরইবা কী হবে? আমরা কোন দিকে যাচ্ছি? এক উদ্বেগজনক পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে দেশের আমজনতার দিন কাটছে। যত দিন যাচ্ছে উদ্বেগ তত বাড়ছে। রাজনৈতিকভাবেই সঙ্কট বাড়ানো হচ্ছে। এই ধরনের সংঘাত যদি অব্যাহত থাকে তাহলে সঙ্কট দীর্ঘায়িত হবে। গণতন্ত্র আরও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দুই দল ইচ্ছা করলে যে কোনো সময় যে কোনোভাবে সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। তারা যদি ইচ্ছা না করে তাহলে আমরা যতই বলি সমস্যার এতটুকুও সমাধান হবে না। সংঘাত হবে, জানমাল নষ্ট হবে, মানুষ মরবে। হানাহানি বন্ধ হবে না। এর সব কিছুই দুই দলের ওপর নির্ভর করছে। দেশজুড়ে যে আতঙ্ক, যে দাবানল তা দূর করার দায়িত্ব রাজনৈতিক দলগুলোর। কিন্তু ক্ষমতায় টিকে থাকা আর ক্ষমতার লোভ আমাদের দলগুলোকে অন্ধ করে দিয়েছে। তারা যা করছে তা কেবল ক্ষমতার জন্যই করছে। জনসম্পদ, রাষ্ট্রীয় সম্পদ, দেশের অর্থনীতি, দেশের ভাবমূর্তি কোনটারই তোয়াক্কা করা হচ্ছে না। এ অবস্থায় রাজনীতিকে সংঘাতময় পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার করাও কঠিন। অনেকে মনে করেন সংঘাত এড়াতে সরকারকে বিরোধীদের সাথে আলোচনায় বসা প্রয়োজন। পর্যবেক্ষকমহলও বলছে, সরকার ও বিরোধী দলকে দেশের স্বার্থে ছাড় দিয়ে রাজনীতির কথা ভাবতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে কি আমাদের বিরোধীদল এবং সরকার রাজনৈতিক সমঝোতায় আসবে? আমাদের দলগুলো শুনবে কি শুনবে না সেটা তাদের এখতিয়ার। কিন্তু দেশবাসীর স্বার্থে উভয়ের এখনই আলোচনায় বসা দরকার, সমাধানের একটা পথ বের করা দরকার। আলোচনার মাধ্যমে উভয়পক্ষকে ছাড় দিয়ে সমস্যা সমাধান করে গণতন্ত্রকে রক্ষা করা দরকার। আমরা মনে করি, দুই দল সমঝোতায় না আসতে পারলে  ব্যাপকহারে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়বে এবং দেশ মোড় নেবে গৃহযুদ্ধের দিকে। দেশ জুড়ে কেবল আতংক আর আতংক। কী হচ্ছে আর কী হবে এ প্রশ্ন সবার। দেশের মানুষ আতঙ্কিত সামনের দিনগুলো নিয়ে। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের মধ্যে এসব অনিশ্চয়তা নিয়ে আলোচনা হলেও ব্যবসায়ীরা সবচেয়ে বেশি আতঙ্কিত। অতীতের রাজনৈতিক অস্থিরতায় বড়জোর লোকসান গুনতে হয়েছে ব্যবসায়ীদের। গণতন্ত্রে সরকার ও বিরোধী দল থাকবে এবং তাদের মধ্যে মত-পার্থক্য থাকবে- এটাই স্বাভাবিক। আর এটাই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য। তবে তাদের মধ্যে সহনশীলতা অবশ্যই কাম্য। দেশের কথা, জনগণের কথাও ভাবতে হবে আমাদের রাজনৈতিক দলগুলোকে। ধৈর্য মহত্ গুণ। কিছুটা ছাড় দিয়ে হলেও শুধু নিজেদের অবস্থানে অনড় না থেকে জনগণের কথা ভেবে পরস্পর আলোচনায় বসতে হবে। ধৈর্য, সহনশীলতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ইত্যাদি বর্তমান রাজনীতিতে বেশি করে চর্চা করার জন্য আমাদের জোর দাবি তুলতে হবে এবং সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তা না হলে দেশ আরো অস্থিতিশীল হয়ে উঠতে পারে, যা জনগণ ও গণতন্ত্রের জন্য কখনোই কাম্য নয়। এ পরিস্থিতি আবার অগণতান্ত্রিক শক্তির উত্থানকে সুযোগ করে দিতে পারে, যা আমরা চাই না। তাই শান্তিপ্রিয় নাগরিক হিসেবে আমরা রাজপথে আন্দোলনের নামে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ও সহিংসতা চাই না। সংঘাত নয়, সংলাপ ও সমঝোতাই গণতন্ত্রের পথ। সংলাপের জন্য উভয়পক্ষকে মুক্তমন নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে শান্তি ও স্বস্তি।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad