Headlines News :
Home » » জকিগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা

জকিগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা

Written By zakigonj news on বৃহস্পতিবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০১৫ | ১১:১৯ PM

জাহানারা চৌধুরী ঝর্ণা
জকিগঞ্জের গ্রামে গ্রামে এক সময় লাঠি খেলা ছিল অন্যতম বিনোদন উপলক্ষ। লাঠি খেলা হয়ে উঠেছিল এ উপজেলার ঐতিহ্যের অংশ। আমন ধান রোপনের পর কৃষকের ঘরে কোন কাজ থাকে না। এর ফাঁকে আবহমানকাল ধরে জকিগঞ্জ উপজেলায় চলে আসছিল লাঠি খেলা। কালের আবর্তনে মানুষ ভুলতে বসেছে এই লাঠি খেলা। জানা যায়, এ অঞ্চলে ১৫/২০ বছর আগের লাঠি খেলার বেশ প্রচলন ছিল। বাহারী নানান পোশাক পড়ে লাঠি ও দা হাতে খেলোয়াড়রা তাদের শারীরিক কসরত প্রদর্শণ করে দর্শকদের আনন্দ দিত। দূর দূরান্ত থেকে ছুটে আসতো মানুষ এ খেলা দেখার জন্য। এক সময় বৈশালী, পাশের বাড়ি, পিরিপাইট, বেনিয়ম, মৃত্যুবাড়ী, শেয়ালধরা এ রকম নানান রকমের লাঠি খেলার প্রচলন ছিল। শারীরিক কসরত প্রদর্শন ও নিজেদের আত্মরক্ষার্থে বহুকাল থেকে লাঠি খেলার প্রচলন ছিল। একজন ওস্তাদের নির্দেশে কখনো একক ভাবে কখনো একের অধিক হয়ে কখনো দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে, আবার সকলেই একত্রে মিলে লাঠি খেলা দেখাত। লাঠি খেলায় দুই ধরনের লাঠি ব্যবহার করা হয়ে থাকে- ছোট লাঠি লম্বা হয়ে থাকে আড়াই হাত, বড় লাঠি লম্বায় হয়ে  থাকে ৪ হাত। এ ছাড়া এ খেলায় দেখনো হয় ৪ বালডির খেলা, ৬ চাকুর খেলা ও রামদার শারীরিক কসরত। লাঠি খেলা খেলতে সাধারণত ৩০ জনের মত একটি দল হয়। একটানা ৩ ঘণ্টার মত খেলা চলে। খেলায় বাদ্যযন্ত্র হিসাবে কারা, বোম, জয়ডাক, কনেট ও পাতাবাঁশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে বোম বাদ্যযন্ত্রটি না থাকায় তারা অন্য যন্ত্রের উপর নির্ভর করে সে বাজনা বাজিয়ে থাকে। গ্রামগঞ্জে দীর্ঘদিন ধরে এ খেলা চলে এলেও বর্তমানে তা হারিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন উপলক্ষে এখনও মাঝে মধ্যে এ খেলা দেখা যায়। কিন্তু এ লাঠি খেলা ক্ষণিকের জন্য। খেলাটি দিনের পর দিন হারিয়ে যাওয়ার ফলে এর খেলোয়াড় সংখ্যা কমছে। তৈরি হচ্ছে না নতুন খেলোয়াড়। আর পুরনো অভিজ্ঞ খেলোয়াড়রা অর্থাভাবে প্রসার করতে পারছে না এ খেলা। তখনকার কয়েকজন লাটি খেলোয়াড় জানান, আবহমানকাল ধরে জকিগঞ্জ উপজেলায় বিনোদনের খোরাক জুগিয়েছে লাঠিখেলা। কিছুদিন আগেও গ্রামাঞ্চলের লাঠি খেলা বেশ আনন্দের খোরাক জুগিয়েছে। মানুষের হৃদয়ে ঠাঁই করে নিয়েছিল এ খেলা। দুর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসত এ খেলা দেখার জন্য। কিন্তু আকাশ সংস্কৃতির এ যুগে হারিয়ে যাচ্ছে এ খেলা। স্যাটেলাইট যুগে আর কাউকে দেখা যায়নি এ খেলা খেলতে। জকিগঞ্জে বর্তমান সময়ে বিভিন্ন জাতীয় দিবসকে কেন্দ্র করে উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা মোস্তাকিম হায়দার এ খেলার আয়োজন করেন থাকেন। অনেক সময় তাকে লাঠি খেলা খেলতে দেখা যায়। অথচ এক সময় লাঠি খেলা দলের সদস্যরা দম ফেলার মত ফুরসত পেত না। লাঠি খেলার সঙ্গে জড়িত পুরাতন শক্তিশালী খেলোয়াররা আজ অনেকই নেই তবুও ওস্তাদদের দেয়া শিক্ষা নিয়ে গুটিকয়েক শিস্য আজও ধরে রেখেছে তাদের এই ঐতিহ্যবাহি লাঠি খেলা। বীরমুক্তিযোদ্ধা মোস্তাকিম হায়দার জানান, জীবিকার তাগিদে অনেকে আজ এই পেশা থেকে সরে যেতে বাধ্য হচ্ছে। কোন ব্যক্তি বা মহল যদি এই খেলাটি রক্ষার্থে পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসেন তাহলে গ্রামবাংলার এই ঐতিহ্য ধরে রাখা সম্ভব।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad