Headlines News :
Home » » শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র.)

শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র.)

Written By zakigonj news on বুধবার, ১ অক্টোবর, ২০১৪ | ১:০০ PM

॥ মোঃ আব্দুল আউয়াল হেলাল ॥

বাংলাদেশে ইলমে হাদীস চর্চার অব্যাহত ধারায় প্রাতঃ স্মরণীয় এক নাম আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র,)। ক্ষণজন্মা এ মহান ব্যক্তিত্ব ছিলেন সদা হাসোজ্জ্বল, সদালাপী ও বন্ধু বৎসল। খুবই অনাড়ম্বর ও সাধারণ জীবন যাপন করতেন তিনি। দক্ষ একজন মুহাদ্দিস হিসেবে আজীবন তিনি ইলমে হাদীসের খিদমতে নিয়োজিত ছিলেন। তাঁর পাঠদান পদ্ধতি ছিলো অত্যান্ত আর্কষণীয় ও মনোমুগ্ধকর। সহজ সরল ভাষা, প্রাঞ্জল উপস্থাপনা ও যৌক্তিক আলোচনা দ্বারা তিনি ইলমে তাফসীর, ইলমে হাদীস ও ইলমে ফিক্হ’র জটিল বিষয়গুলো ছাত্রদের কাছে তুলে ধরতেন। অপেক্ষাকৃত কম মেধাবী ছাত্রও সহজে বুঝে নিতে পারতো। এ কারণে তার ক্লাসে অংশ নিতে ছাত্রগণ উদগ্রীব থাকতো।
জন্ম : জকিগঞ্জ উপজেলার কাজলসার ইউনিয়নে নিভৃত পল্লী গোটারগ্রামে ১৯৩৪ সালে জন্ম গ্রহণ করেন শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র.)। তাঁর পিতা মরহুম কেরামত আলী। মাতা লতিফা বেগম।
শিক্ষাজীবন : বাড়ির পাশের পাঠশালায় তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সূচনা। মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত লেখা-পড়া করেন সড়কের বাজার আহমদিয়া মাদ্রাসায়। একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবে তিনি শিক্ষকগণের মনযোগ আর্কষণে সক্ষম হন। গাছবাড়ী জামিউল উলুম মাদ্রাসা থেকে ১৯৫৮ সালে আলীম ও ১৯৬০ সালে ফাযিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে তৎকালীন ইষ্টপাকিস্থান মাদ্রাসা এডুকেশন বোর্ডের মেধা তালিকায় স্থান করে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। ১৯৬২ সালে সিলেট সরকারী আলীয়া মাদ্রাসা থেকে কামিল (হাদীস) পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।
কর্মজীবন : জকিগঞ্জ উপজেলার গঙ্গাজল হাসানিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে তাঁর কর্মজীবনের শুরু। স্বীয় পীর ও মুরশিদ শামসুল উলামা হযরত আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) এর নির্দেশে ১৯৬৩ সালের নভেম্বর মাসে তিনি বিশ্বনাথ উপজেলার সৎপুর দারুল হাদীস (কামিল) মাদ্রাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে যোগদান করেন। মুক্তিযোদ্ধ পরবর্তীতে তিনি জকিগঞ্জ উপজেলার ইছামতি দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসায় ভাইস প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ করেন। ১৯৮৮ সালের শেষ দিকে কমলগঞ্জ উপজেলার ভানুগাছ শফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসায় প্রিন্সিপাল পদে যোগদান করেন। ১৯৯০ সালের মধ্যভাগে জকিগঞ্জ উপজেলার বাদেদেওরাইল ফুলতলী কামিল মাদ্রাসায় ভাইস প্রিন্সিপাল ও মুহাদ্দিস পদে যোগদান করেন। ইন্তেকালের আগের দিনও তিনি মাদ্রাসায় উপস্থিত থেকে হাদীস শরীফের দারস পেশ করেছেন।
আধ্যাত্মিক জীবন : ছাত্র জীবন শেষে তিনি হযরত ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) এর হাতে বাইআত গ্রহণ করেন। দীর্ঘ মেহনতের পর আপন মুরশিদের কাছে থেকে খিলাফত লাভ করেন। উল্লেখ্য যে, হযরত ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) এর কাছে তিনি যথারীতি ইলমে ক্বিরাত ও ইলমে হাদীসেরও ইজাযত লাভ করেছিলেন।
মাদ্রাসা ও মসজিদ প্রতিষ্ঠা : নিজ এলাকায় ইসলামী শিক্ষা প্রসারের লক্ষে ১৯৮৩ সালে তিনি নিজ বাড়ীর পার্শ্বে প্রতিষ্ঠা করেন গোটারগ্রাম ইয়াকুবিয়া মাদ্রাসা। বর্তমানে এ মাদ্রাসায় দাখিল স্তর পর্যন্ত ৩৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী লেখা-পড়া করছে। মাদ্রাসার সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তাঁর দ্বিতীয় পূত্র মাওলানা মহিউদ্দিন। একই সময়ে তিনি মাদ্রাসার পাশে একটি মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন।
প্রকাশিত গ্রন্থ : শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র.) ‘ইসলামের দৃষ্টিতে সালাম ও কদমবুছির মাছআলা’ শিরোণামে রিসালাখানি ১৩৮৭ হিজরীর ১৫ শাওয়াল রচনা সম্পন্ন করেন। ১৯৮০ সালের ১৩ মার্চ ‘ইসলামের দৃষ্টিতে সালাম ও কদমবুছি’ নামে বইখানির প্রথম সংস্করণ ইছামতি দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসার বর্তমান অধ্যক্ষ হযরত মাওলানা মাশুক আহমদ ছাহেব প্রকাশ করেন। দীর্ঘ ১৯ বছর পর ১৯৯৯ সালের ডিসেম্বর মাসে বইখানির দ্বিতীয় সংস্করণ সিলেটের রহমানিয়া বইঘর থেকে প্রকাশিত হয়। বর্তমানে তৃতীয় সংস্করণ পাঠকের হাতে। এ বইখানি দু’টি ভাগে বিভক্ত। প্রথমভাগে সালাম ও কদমবুছির পার্থক্য এবং সালাম আদান-প্রদানের সুন্নত তরীকা সর্ম্পকে আলোচনা করা হয়েছে। দ্বিতীয় ভাগে হাদীস শরীফ ও ফিকহের কিতাবাদীর বরাতে কদমবুছি যে শরীয়ত সম্মত ও মুসতাহাব আমল সে বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
পারিবারিক জীবন : পারিবারিক জীবনে শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল জব্বার গোটারগ্রামী (র.) সাত পূত্র ও দুই কন্যা সন্তানের জনক। তাঁরপুত্রগণ হলেন- ১। মাওলানা শিহাব উদ্দিন, মুহাদ্দিস-দারুল হাদীস লতিফিয়া, লন্ডন। ২। মাওলানা মুহিউদ্দিন, সুপার- গোটারগ্রাম ইয়াকুবিয়া দাখিল মাদ্রাসা, জকিগঞ্জ-সিলেট। ৩। মাওলানা এমাদ উদ্দিন, প্রভাষক- জকিগঞ্জ ফাযিল সিনিয়র মাদ্রাসা, জকিগঞ্জ-সিলেট। ৪। মাওলানা জইন উদ্দিন, প্রভাষক- সুবহানীঘাট দারুস সুন্নাহ ইয়াকুবিয়া কামিল মাদ্রাসা, সিলেট। ৫। মাওলানা ওয়াছি উদ্দিন, শিক্ষক- ব্রাম্মণগ্রাম মাদ্রাসা, বালাগঞ্জ-সিলেট। ৬। মাওলানা হামিদ উদ্দিন, শিক্ষক- দারুল হাদীস লতিফিয়া, লন্ডন। ৭। মোঃ ওলী উদ্দিন, অধ্যায়নরত।
ইন্তেকাল : ১৯৯৩ সালের ১লা অক্টোবর শুক্রবার জকিগঞ্জ উপজেলার হাতিডহর গ্রামের জামে মসজিদে জুমুআর নামাজ পূর্ব বয়ানরত অবস্থায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। বয়ান অসমাপ্ত রেখে মোনাজাত শুরু করেন। “রাব্বানা” শব্দটি উচ্চারণের  সাথে সাথে মিম্বর থেকে পড়ে যাচ্ছেন দেখে মুসল্লিগণ তাকে যথাযথ শুইয়ে দেন। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে এ পৃথিবী থেকে চির বিদায় নেন এ মহান মনীষী। সে দিন তাঁর বয়ানের বিষয় ছিল নেককার বান্দাগণের রূহ কিভাবে কবজ করা হবে। আর যে জবান দিয়ে আগের দিন বৃহস্পতিবার মাদ্রাসায় হাদীস শরীফ পড়াতে পড়াতে “ ক্বা-লা রাসুলুল্লাহ ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম
” উচ্চারণ করে এসেছেন, সেই মুবারক জবানে ইহকালের শেষ উচ্চারিত শব্দ ছিলো “রাব্বানা”। ২ অক্টোবর শনিবার হাজার হাজার মানুষের অংশ গ্রহণে নামাজে জানাযার ইমামতি করেন তাঁর জোষ্টপুত্র মাওলানা শিহাব উদ্দিন। গোটারগ্রাম ইয়াকুবিয়া মাদ্রাসার সম্মুখস্থ মাঠে তাকে দাফন করা হয়।
লেখক- বিশিষ্ট লেখক, কলামিষ্ট ও সাহিত্যিক। সিনিয়র শিক্ষক- দারুল হাদীস লতিফিয়া, লন্ডন ও প্রতিষ্ঠাতা জকিগঞ্জ লেখক পরিষদ, জকিগঞ্জ-সিলেট। 
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad