Headlines News :
Home » » লেখা-পড়ার কোন বয়স নেই !

লেখা-পড়ার কোন বয়স নেই !

Written By zakigonj news on শনিবার, ২১ জুন, ২০১৪ | ৮:০৮ PM

আল মামুন
‘প্রতিদিন সবার আগে ক্লাসে আসেন। বসেন ফাস্ট বেঞ্চে। জানার আগ্রহ প্রবল। প্রশ্ন করেন ঘন ঘন। হাতের লেখা সুন্দর। পরীক্ষক্ষায় পাশও করেন নিয়মিত ’দশম শ্রেণীতে পড়–য়া ৪৭ বছর বয়সের একজন শিক্ষার্থী সম্পর্কে এভাবেই মন্তব্য করেন শ্রেণী শিক্ষক কবির আহমদ। এই শিক্ষার্থীর নাম কমর উদ্দিন। তিনি সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার আটগ্রাম আমজাদিয়া দাখিল মাদ্রাসার ছাত্র এবং উপজেলার মানিকপুর ইউনিয়নের কলাকুটা গ্রামের মৃত কালা মিয়ার পুত্র। জকিগঞ্জ উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুস ছালামের দেয়া তথ্য মতো ঐ মাদ্রাসায় গিয়ে দেখা যায় কমর উদ্দিন দশম শ্রেণীতে বসে ক্লাস করছেন। ক্লাস শেষে কথা হয় কমর উদ্দিনের সাথে। আজ থেকে ৪০ বছর আগে যখন তার বাবা মারা যান তখন তার বয়স ছিল মাত্র সাত বছর। চার ভাই বোনের মধ্যে তিনি একমাত্র পুত্র সন্তান। ফুলতলী মাদ্রাসায় তিনি মক্তবের পাঠ শেষ করেন। বাবার মৃত্যুর পর কলাকুটা গ্রামেই মামার বাড়িতে থেকে কলাকুটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনি পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। তারপর কিছুদিন তিনি কালিগঞ্জের একটি কওমী মাদ্রাসায় যান। ১৯৮৫ সালে তিনি আটগ্রাম মাদ্রাসায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হন। মাত্র দুই বছর এখানে লেখাপড়ার পর দরিদ্রতার কারণে তিনি পরিবারের হাল ধরেন। তিন বোনকে বিয়ে দেয়ার পর নিজে বিয়ে না করেই তার মাথায় আবার লেখাপড়ার নেশা চেপে বসে। ২০০৫ সালে কমর উদ্দিনের মা মারা যান। বর্তমানে তিনি তার ছোট বোন জামাই আটগ্রামের রায়গ্রামের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আকরম আলীর বাড়ীতে থাকেন। ২০১২ সালে তিনি পুনরায় আটগ্রাম আমজাদিয়া দাখিল মাদ্রাসায় অষ্টম শ্রেণীতে ভর্তি হন। বয়স বেশি হবার কারণে মাদ্রাসা বোর্ডের জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট(জেডেসি) পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি কমর উদ্দিন। লেখাপড়ার প্রতি তার আগ্রহ দেখে মাদ্রাসার অভ্যন্তরীন পরীক্ষায় ফলাফলের ভিত্তিতে তাকে নবম শ্রেণীতে ভর্তি করেন শিক্ষকরা। বর্তমানে তিনি দশম শ্রেণীতে লেখাপড়া করছেন। আটগ্রাম মাদ্রাসার সুপারিনটেনডেন্ট আব্দুস সবুর বলেন-আইনত অষ্টম শ্রেণী পাশ না করে কেউ নবম শ্রেণীতে ভর্তি হতে পারে না। লেখাপড়ার প্রতি কমর উদ্দিনের টানের কারণেই আমরা তাকে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে পড়াচ্ছি। অভ্যন্তরিণ সব পরীক্ষায় সে নিয়মিত অংশ নিচ্ছে এবং পাশ করছে তবে সে দাখিল পরীক্ষা দিতে পারবে না। এই বয়সে লেখাপাড়ার প্রতি আগ্রহ প্রসঙ্গে কমর উদ্দিন বলেন-ছোট বেলায় বাবা মারা যাওয়ায় অভাবের কারণে লেখাপড়ার সুযোগ পাই নাই। আমি ‘পড়নেওয়ালা মরনেওয়ালা’। মরার আগ পর্যন্ত পড়তে চাই। সার্টিফিকেটের প্রয়োজন নাই। অজানা বিষয় জানতে চাই। শুনেছি উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা দেয়া যায়। সেখানে ভর্তি হতে যে টাকা লাগে সেটা পাব কোথায়। প্রয়োজনে আবার ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হব। আপনাদের সহযোগিতা চাই। দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী আব্দুর রশিদ প্রতিক্রিয়ায় বলে, কমর উদ্দিনের মতো মনযোগী বয়স্ক একজন শিক্ষার্থীকে সহপাঠী হিসেবে পেয়ে আমরা গর্বিত। শ্রেণী কক্ষের শৃঙ্খলা রক্ষায় তিনি সব সময় সহযোগিতা করেন। অপর শিক্ষার্থী জান্নাতুন নাঈমা চৌধুরী বলে-আমরা কেউ তাকে দাদা, কেউ চাচা, কেউ মামা বলে ডাকি তিনি কিছু মনে করেন না। এই বয়সেও তিনি নিয়মিত ক্লাসে আসেন এটা আমাদের খুব ভাল লাগে। কমর উদ্দিনের এক সময়ের সহপাঠী কাজলসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বাহাদুর বলেন-তখন তিনি আমাদের সাথে লেখাপড়া করেছেন এখন আমাদের সন্তানদের সাথে পড়ছেন। কমর উদ্দিন প্রমাণ করেছেন লেখাপড়ার বয়স নেই ইচ্ছা আর আগ্রহই মূল। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুস ছালাম বলেন, অসচেতনতার কারণেই আমাদের দেশে শিক্ষার হার কম। কমর উদ্দিন বয়স্ক শিক্ষার দৃষ্টান্ত হতে পারেন। উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশি বয়সের লোকজন লেখাপড়া করলেও নিজের সন্তান এবং নাতির বয়সীদের সাথে বসে ক্লাস করা সত্যিই প্রেরণাদায়ক।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad