Headlines News :
Home » » মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালনায় হচ্ছে স্বতন্ত্র অধিদপ্তর

মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালনায় হচ্ছে স্বতন্ত্র অধিদপ্তর

Written By zakigonj news on বুধবার, ৭ মে, ২০১৪ | ১:২১ PM

ডেস্ক রিপোর্ট
দেশের মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালনায় হচ্ছে স্বতন্ত্র অধিদপ্তর। এর নাম হবে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। ইতিমধ্যে বিষয়টি চূড়ান্ত করেছে সরকার। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বর্তমানে মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালিত হয় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে। সম্প্রতি মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের জন্য প্রায় সব প্রক্রিয়াই সম্পন্ন হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকেও অনুমোদন পাওয়া গেছে। নতুন এ অধিদপ্তরের মাধ্যমে দেশের ১৭ হাজার ৯০৭টি মাদ্রাসা পরিচালিত হবে। এ অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার জন্য ৫০টি পদও সৃষ্টি করা হয়েছে। মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের কাজ পরিচালিত হবে শিক্ষা ভবন থেকেই। তবে এর অফিস থাকবে ভবনটির ৫ম তলায়। থাকবেন আলাদা মহাপরিচালক। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে প্রক্রিয়া শেষের পথে। এখন হবে মহাপরিচালক নিয়োগ। মহাপরিচালক হিসেবে নিয়োগ পেতে ইতিমধ্যে অনেকেই লবিং-তদবির শুরু করে দিয়েছেন। যাচ্ছেন সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিদের কাছে। মাদ্রাসা অধিদপ্তরের জন্য যেসব পদ সৃষ্টি করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে- মহাপরিচালক, পরিচালক ২ জন, উপ-পরিচালক ৩ জন, সহকারী পরিচালক ৭ জন, পরিদর্শক ৭ জন, সহকারী প্রোগ্রামার ১জন, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা ১ জন, লাইব্রেরিয়ান ১ জন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ১ জন, ব্যক্তিগত সহকারী ৩ জন, স্টোরকিপার ১ জন, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ২ জন, ক্যাশিয়ার ১ জন, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক ১ জন, হিসাব সহকারী ১ জন, ড্রাইভার ৪ জন, ডেসপাস রাইডার ১ জন, এমএলএসএস ৭ জন, গার্ড/নাইট গার্ড ৩ জন ও ঝাড়ুদার ২ জন।  মাদ্রাসা অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার দাবি দীর্ঘদিনের। কিন্তু এক শ্রেণীর পদস্থ কর্মকর্তাদের বিরোধিতার কারণে স্বতন্ত্র মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠা করা যায়নি দীর্ঘদিনেও। দেশে বর্তমানে ১৭ হাজার ৯০৭টি মাদ্রাসা রয়েছে। এর মধ্যে এবতেদায়ী ৬৮৪৮টি, দাখিল ৬৫৬৬টি, আলিম ২৭৮২টি, ফাজিল ১৪৯২টি ও কামিল ২১৯টি। এরমধ্যে এমপিওভুক্ত মাদ্রাসার সংখ্যা ৯১১৬টি। মহিলা মাদ্রাসার সংখ্যা ১৫৪৬টি। সব মিলিয়ে বর্তমানে মাদ্রাসায় পড়ালেখা করছে ৫ লাখ ২৪ হাজার ৪৪৭ জন শিক্ষার্থী। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মাউশি’র অধীনে মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালিত হওয়ায় সাধারণ ও মাদ্রাসা দু’টোতেই জট সৃষ্টি হয়। এ জন্য মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দাবি হচ্ছে স্বতন্ত্র অধিদপ্তর। শিক্ষা ভবনের দুর্নীতি আর অনিয়মের ঘটনা অনেক পুরনো। বিশেষ করে মাদ্রাসা শাখায় আরও বেশি। স্বতন্ত্র অধিদপ্তর হলে মাদ্রাসা শিক্ষাকে কতটা দুর্নীতিমুক্ত করা যাবে- সেটা সময় সাপেক্ষ বিষয়। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, নতুন অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠা হলে মাদ্রাসা শিক্ষায় অনেক গতি আসবে। তাদের যেতে হবে না মাউশি‘র কর্মকর্তাদের কাছে। মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল কাসেম মিয়া বলেন, বর্তমানে মাউশি’র অধীনে মাদ্রাসার কাজ পরিচালিত হয়। স্বতন্ত্র মাদ্রাসা অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার জন্য দীর্ঘদিন ধরেই শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করে আসছেন। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ও বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ড. মুহাম্মদ আবদুর রশীদ বলেন, মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য স্বতন্ত্র অধিদপ্তর হবে একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এর মাধ্যমে দেশের মাদ্রাসাগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হবে। সেবার মানও বাড়বে। সরকারের সদিচ্ছা থাকলে মাদ্রাসা শিক্ষা অনেক উপরে চলে যাবে। অধ্যাপক রশিদ বলেন, শুধু অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠা করেই দায়িত্ব শেষ করলে চলবে না, সরকারের ইতিবাচক মনোভাব থাকতে হবে। সেইসঙ্গে অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদেরও সৎভাবে কাজ করতে হবে। শিক্ষার্থীদের আধুনিক ও বিজ্ঞান মনস্ক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ বিষয়ে বলেন, স্বতন্ত্র মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার দাবি দীর্ঘদিনের। আমরা সে দাবিটি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। এ নিয়ে ইতিমধ্যে সিদ্ধান্তও হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, নতুন অধিদপ্তরের জন্য আলাদা অফিস, জনবল প্রয়োজন। এখন আমাদের একটু সময় দরকার।
Share this article :

0 মন্তব্য:

Speak up your mind

Tell us what you're thinking... !

ফেসবুক ফ্যান পেজ

 
Founder and Editor : Rahmat Ali Helali | Email | Mobile: 01715745222
25, Point View Shopping Complex (1st Floor, Amborkhana, Sylhet Website
Copyright © 2013. জকিগঞ্জ সংবাদ - All Rights Reserved
Template Design by Green Host BD Published by Zakigonj Sangbad